ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে দ্বীপ্তমান মানবউন্নয়ন ও সমাজকল্যাণ সংস্থার আলোচনা সভা ও মাক্স বিতরন সাতক্ষীরা এক প্রকৌশলীর বাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতি, ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ বিভিন্ন মালামাল লুট চট্টগ্রাম গণহত্যা দিবস আজ দেশে স্বাধীনতা রক্ষা ও গণতন্ত্র সমুন্নত রাখতে কাজ করার জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে শিক্ষক সমিতির দাবি কুড়িগ্রাম সদর থানার উপ-পরিদর্শকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরওয়ানা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে মৃত্যু ৩ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৯৮৯ জন,সংক্রমণের হার ৩৯ দশমিক ৯৫ বিজিবি ঠাকুরগাঁও সেক্টর আন্তঃ ব্যাটালিয়ন ভলিবল প্রতিযোগিতা-২০২২ এর উদ্বোধন নীলফামারীতে গ্রামের বিভিন্ন রাস্তাঘাট উন্নয়নে মাটি কাটার কাজ করছে,১৩ হাজার ৫৫১ জন শ্রমিক
নীলফামারী কিশোরগঞ্জে প্রকৃতিতে হলদে হাসির সৌরভে রঙ ছড়াচ্ছে সোনাইল ফুল

নীলফামারী কিশোরগঞ্জে প্রকৃতিতে হলদে হাসির সৌরভে রঙ ছড়াচ্ছে সোনাইল ফুল

মোঃ মিজানর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
প্রকৃতি মাতা যেন তার আপন খেয়ালে সুনিপুণ রঙ তুলির আঁচড়ে রূপ-সৌন্দর্যের বলিরেখায় রঙ্গ মঞ্চের রুপ দিয়েছে এই বঙ্গ জননীকে। আর বঙ্গজননীর ঋতুচক্রের পালাবদলে গ্রীষ্মের খড় রুদ্র তাপে সোনাইল ফুল পসরা সাজিয়েছে নীলফামারী কিশোরগঞ্জের সবুজেের কুঞ্জবনে।

এতে প্রকৃতিপ্রেমীরা খুঁজে পেয়েছে তার আপন ঠিকানা। স্বর্ণালী রঙের বর্ণিলতায় প্রকৃতিতে রঙ ছড়াছে আপন মনে সোনাইল ফুল। বৈশাখের শেষ খরতাপেও পথিকের নজর কাড়ছে এই ফুল। হাওয়ায় দুলতে থাকা হলুদ-সোনালি রঙের থোকা থোকা ফুল কিশোরীদের পুষ্পার্ঘ নিবেদনে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। আবার ফুলের ফাঁকে দুলছে লম্বা ফল।

এই ফলকে অনেকেই বাঁদর লাঠি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। হলুদ বরণ সৌন্দর্যে মাতোয়ারা হয়ে তার সান্নিধ্য পেতে আসে প্রকৃতিপ্রেমীরা। এই ফুল নিজের রূপলাবণ্যর আভা ছড়িয়ে দিয়েছে পুরো উপজেলায় ।

গ্রীষ্মের প্রকৃতিতে প্রাণের সজীবতা নিয়ে ফোটে সোনাইল। প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠা সোনাইল ফুল গাছ তার হলুদ-সোনালি রঙের সৌন্দর্য বিতরণ করেই অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে। অযত্ন-অবহেলায় বেড়ে উঠলেও তার রূপে আকৃষ্ট হয়ে কাছে আসে সবাই, ক্যামেরায় বন্দি করে রাখে তার সোনা মাখা রঙ। গেল কয়েক বছর আগে পথে-প্রান্তরে হলুদ সোনাইল ফুলের আধিক্য ছিল প্রকৃতি জুড়ে।

এখন এ ফুল নেই বললে চলে। তাই প্রকৃতিকে বাঁচার তাগিদে কৃষ্ণচূড়া, শিমুল, পলাশ,সোনাইল,জারুল জাতীয় গাছ লাগিয়ে সৌন্দর্য বর্ধন করার দাবি উপজেলা বাসির।

এতে প্রকৃতি ফিরে পাবে তার আপন রূপ, নির্মল বাতাসে সজীবতা ফিরে পাবে মানুষজন।আর কবি সাহিত্যিকগণও খুঁজে পাবে তার কাব্যিক ভাষা।মোদ্দাকথা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে অরন্যের বিকল্প নেই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST