ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডোমারে সন্ত্রাসী হামলার স্বীকার প্রতিবন্ধী পরিবার, মামলা তুলে নেওয়ার হুমকী প্রদান নীলফামারীতে জাতীয় দক্ষতামান বেসিক ট্রেড কোর্সকে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে চলমান রাখার দাবীতে মানববন্ধন। নীলফামারীতে দূর্গা পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নবীনগে দেশের অন্যতম মূর্তি তৈরী ও বিকিকিনি নীলফামারী সার্কেল অফিস এবং পুলিশ সুপার কার্যালয় পরিদর্শন নীলফামারী কমিটির পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক খাগড়াছড়িতে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে ২ যুবক আটক নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা
কিশোরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী গরুর হাল

কিশোরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী গরুর হাল

মোঃ মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
কালের প্রবাহে হারাতে বসেছে আবহমান বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যের স্মারক গরু দিয়ে হালচাষ। মানবসভ্যতার ঊষালগ্ন থেকে দেশের অন্য অঞ্চলের মত কৃষিনির্ভর জেলা নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের গ্রামীণ কৃষকের ফসল ফলানোর একমাত্র অবলম্বন ছিল গরু দিয়ে হালচাষ।বাঙ্গালির হাজার বছরের লালন করা ঐতিহ্য গরু দিয়ে হাল চাষ আধুনিকতার ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে।

বর্তমান যন্ত্রনির্ভর যুগে কৃষকরাও ধুঁকছে ট্রাক্টর,পাওয়ার টিলারে জমি চাষাবাদে। হয়তো এই সনাতনী পদ্ধতির হালচাষ একদিন কৃষকের জীবন থেকে উঠে আসবে গল্প, কবিতা, নাটক, সিনেমায়। আধুনিক সমাজে পৌছে যাবে শিল্পীর চিত্রকর্মে বইয়ের প্রচ্ছদে প্রচ্ছদে।

স্থানীয় প্রবীণ ব্যক্তিরা জানান,বংশ পরস্পরায় কৃষক পরিবারগুলো কামারের এক টুকরো লোহার ফাল, ছুতার বা কাঠমিস্ত্রির হাতে তৈরি কাঠের লাঙ্গল,জোয়াল আর বাঁশের তৈরি মুটিয়া, ইঁশ,পাতার,গরুর মুখের টোনা (গোমাই) পেন্টি বা গরু শাসনে পাচুনি লাঠি,মই ব্যবহার করে জমি চাষাবাদ করত। হালচাষের জন্য বানিজ্যিকভাবে গরু-মহিষ পালন করা হত। মাঠ-প্রান্তরে হরহামেশাই চোখে পড়ত গরু দিয়ে হালচাষ। নিজের সামান্য জমিতে হালচাষের পাশাপাশি জীবিকার উৎস ছিল। এসব চিত্র এখন দেখা যায়না।

অত্যাধুনিক যুগে গরু দিয়ে হাল চাষ দেখা মেলে উপজেলার রনচন্ডি ইউপি’র চতুর পাড়া গ্রামের ফসলি জমি চাষাবাদ মাঠ। এসময় ওই গ্রামের প্রবীন কৃষক (হালুয়া)আজিজার বলেন, তার জীবনের সিংহভাগ সময় কেটেছে হালচাষ আর গরুর পালের সঙ্গে। সেই দিনগুলো এখন অতীত স্মৃতি।

গরুর হালচাষের ঊপকারিতা সর্ম্পকে বলেন, লাঙ্গলের ফলায় জমি গভীর পর্যন্ত ওলট-পালট হয়ে নিচের পুষ্ঠিগুন ওপরে চলে আসে.বায়ু সহজে চলাচলের পরিমান বাড়িয়ে দেয়.মাটির আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে. প্রকৃতির লাঙ্গল কেঁচোসহ উপকারী কীটপতঙ্গ ধ্বংস হয়না,জমিতে ঘাস কম হয়, গরুর গোবর জমিতে পড়ে জৈব সারে ফসল ভালো হতো। স্বল্প সময়ে জমি চাষ হলেও জমির ঊর্বরতা কমে যাচ্ছে।

উঃদুরাকুটি হাড়িবেচা পাড়া গ্রামের শাহাবুল (৫৫)বলেন,বোধ সময়ে দেখেছি বাপ-দাদারা ভোরের আকাশে ভেসে আসা আযানের সাথে কাঁধে লাঙ্গল-জোয়াল,মই,গরু নিয়ে মাঠে যেত হালচাষের জন্য। সকালে বৌ ঠুনির হাতের এক থালা পান্তা, কাঁচা ও পোড়ানো শুকনো মরিচ, খাঁটি সরিষার তেল,সুটকি,সিদল,আলুর ভর্তা দিয়ে জমির আইলের বসে আয়েস ভরে খেত।এ ঐতিহবাহী খাবারের সাথে হারিয়ে যাচ্ছে গরুর বলদ. হারিয়ে যাচ্ছে লাঙ্গল দিয়ে হালচাষ।

কিশোরীগঞ্জ সরকারী ডিক্রী কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক গীতিময় বলেন, মানুষ যেভাবে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে, এতে গ্রামীণ এ ঐতিহ্য ধরে রাখা দুরূহ ব্যাপার । তবুও উপজেলার কিছু কিছু স্থানে আমাদের কৃষকদের লালন করতে এ ঐতিহ্য অনেকে তা ধরে রাখার চেষ্ঠা করছেন ।

উপজেলা কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান বলেন,সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নতুন নতুন প্রযুক্তি নিয়ে এগিয়ে চলছে দেশের কৃষি নির্ভর অর্থনীতি। কম পরিশ্রমে,স্বল্প সময়ে অধিক ফসল ফলাতে মানুষ এখন যন্ত্রনির্ভর হয়ে পড়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST