ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ইফতার কিনতে যাওয়া হলনা শরিফুদ্দিনের । ডোমারে শিক্ষার্থীদের জন্য অভিভাবকদের মাঝে খাবার বিতরণ। যশোরের বেনাপোল কাস্টমস হাউস দেশের প্রথম ডিজিটাল কাস্টমস হাউসে উন্নীত। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান। করোনা কালীন পরিস্থিতি ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ। কিশোরগঞ্জে সিটিজেন চার্টার না থাকায় মৎস্য চাষীরা সেবা বঞ্চি। নীলফামারীতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ইফতার উপহার পেলেন অসহায় ও দরিদ্র মানুষ। নীলফামারীতে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু জাহিদুল, পরিবার বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা। চট্টগ্রামে করোনায় আরো ৫ জনের মৃত্যু ।
গাইবান্ধা থেকে ঢাকাগামী দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ, যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ ।

গাইবান্ধা থেকে ঢাকাগামী দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ, যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ ।

কামরুল হাসান ,গাইবান্ধা প্রতিনিধি ,    

পরিবহন শ্রমিক ও বহিরাগত পরিবহন মালিকদের দ্বন্দ্বের কারণে  ৬ জুলাই থেকে একটানা পাঁচদিন যাবত গাইবান্ধা থেকে ঢাকাগামী দুরপাল্লার চেয়ারকোচ গুলোর চলাচল বন্ধ রয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে আলহামরা, এসআর, শ্যামলী, হানিফ, অরিন, একতা পরিবহনের গাড়িগুলো। মালিক ও শ্রমিক কর্তৃপক্ষের দ্বন্দ্ব নিরসন না হওয়ায় কবে নাগাদ চেয়ারকোচগুলো চালু হবে তা অনিশ্চিত। ফলে এ জেলার ঢাকায় যাতায়াতকারি বাসযাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শ্রমিক সংগঠনগুলোর সূত্রে জানা গেছে, দুরপাল্লার চেয়ারকোচগুলো জেলা বাস টার্মিনাল থেকে ছাড়ার সময় নানা ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রতিদিন পূর্বের ১৮০ টাকার পরিবর্তে ২৬০ টাকা করে দেয়ার দাবি জানায় শ্রমিকরা। সেইসাথে শ্রমিকরা মহাসড়কে চাঁদাবাজি বন্ধেরও দাবি জানায়। এ নিয়ে গাইবান্ধা জেলা পর্যায়ের মালিকদের সাথে শ্রমিক সংগঠনের দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হলে গত ৬ জুলাই থেকে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় গাইবান্ধা জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মটর মালিক সমিতি ও শ্রমিক সংগঠনের সাথে বিষয়টি নিস্পত্তি হয়। ফলে একদিন পরেই গাইবান্ধা থেকে ঢাকার চেয়ারকোচ চলাচলের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে জেলা মটর মালিক সমিতি সুত্রে জানা গেছে।

কিন্তু ঢাকা বাস-ট্রাক ওনার্স এসোসিয়েশনের সাথে শ্রমিক সংগঠনের মহাসড়কে চাঁদাবাজি বন্ধ, বর্ধিত চাঁদা প্রদান, সড়কে যানবাহনের নিরাপত্তা বিধানসহ অন্যান্য বিষয়ে নিস্পত্তি না হওয়ায় তারা গাইবান্ধায় একটানা পাঁচদিন যাবত চেয়ারকোচগুলো চলাচল বন্ধ রেখেছে।

এদিকে ৭টি পরিবহন কোম্পানীর প্রতিদিন গড়ে যেখানে ৪টি থেকে ৬টি পর্যন্ত চেয়ারকোচ গাইবান্ধা-ঢাকা চলাচল করতো। সেখানে একটানা পাঁচদিন যাবত ওই সাতটি পরিবহনের সকল চেয়ারকোচ বন্ধ থাকায় যাত্রীদের সীমাহীন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ফলে গাইবান্ধার সর্বস্তরের বাসযাত্রীদের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে বন্ধ থাকা গাইবান্ধা-ঢাকা চেয়ারকোচ চলাচল অবিলম্বে চালু করার দাবি জানানো হয়েছে





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST