ঘোষনা:
শিরোনাম :
দীর্ঘ এক বছর পর ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু,শিক্ষামন্ত্রী। চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন । নীলফামারীতে অটোরিকশা ও নৈশ কোচের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১১। নীলফামারীতে সড়ক র্দূঘটনায় ১জন নিহত ও ১২জন ইপিজেড কর্মী আহত
গণহত্যায় নিহত জলঢাকার পরিবারগুলো স্বীকৃতি চায়।

গণহত্যায় নিহত জলঢাকার পরিবারগুলো স্বীকৃতি চায়।

রনজিত রায়, জলঢাকা নীলফামারী প্রতিনিধি ,
স্বাধীনতার ৪৮ বছর পেরিয়ে গেলেও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি থেকে বঞ্চিত আমরা। পাইনি কোন মুল্যায়ন। পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করি। কই একদিনের জন্যেওতো আমাদের পরিবারের কেউ খোঁজ নেয়না ? তবে কেন আমাদের বাবা,কাকারা সেদিন প্রাণ দিলেন ? এভাবেই আক্ষেপ নিয়ে কথাগুলো বললেন নীলফামারীর জলঢাকায় ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে গণহত্যায় নিহত হেমন্ত কুমার শীলের ছেলে ভূপেন শীল। নিহত হেমন্ত কুমার শীলের সহধর্মীনি বদনেশ্বরী (৯৫) রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির আসায় এখনো স্বপ্ন দেখেন। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আমার স্বামী, দেবরসহ অসংখ্য মানুষ প্রাণ দিয়েছে। আমাদের মুল্যায়ন সরকার কবে করবেন? ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ২৭ শে এপ্রিল শরণার্থি হয়ে ভারত যাওয়ার পথে উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের কালীগঞ্জে দেশের বর্বরচিত গণহত্যার শিকার হয় ভূপেন শীলের পিতার মত আরও নিরস্ত্র প্রায় ৩ শত সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্য। সেদিনের সেই বিভীষিকাময় ও বেদনাগাঁথা স্মৃতির দিনটির কথা বলতে গিয়ে আবেগতারিত হয় ভূপেন শীলসহ প্রতিটি পরিবার। তখন আমার বয়স ৯, মুক্তিযুদ্ধ চলছিল। একদিন (২৭শে এপ্রিল) আমার বাবা, কাকারাসহ প্রায় ৫শ পরিবার প্রাণ বাঁচাতে ভারতের উদ্দ্যেশে রওনা হয়। বালাগ্রাম থেকে গোলনা বর্তমানে বঙ্গবন্ধু হাট পৌছা মাত্রই অপর দিক থেকে প্রথমে একটি কনভয় এসে কয়েকজনের সাথে কথা বলতে থাকে পাকিস্তানি মেলেটারিরা। তার কিছুক্ষণ পর এক এক করে আরও ৬ টি কনভয় আমাদেরকে ঘিরে ফেলে। প্রতিটি গাড়ি থেকে পাকিস্তানি সেনারা নেমে এসে আমাদের বাবা,কাকাসহ পুরুষ,যুবক সবাইকে পাশ^বর্তি ক্যানেলে নামিয়ে এলোপাতারি ভাবে গুলিবর্ষন করতে থাকে। আমরা ভয়ে দৌড়াতে থাকি। তারপর যখন জ্ঞান ফেরে তখন জানতে পারি আমার বাবা হেমন্ত শীল,কাকা শ্রীকান্ত শীল,দিলীপ শীল,দাদা চন্দ্র কেশরসহ প্রায় ৩শ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে পাকসেনারা। এভাবে সেদিনের ঘটনার বর্ননা দিলেন ভূপেন শীল। তিনি আরও বলেন,আমাদের এখন শুধু একটাই চাওয়া সেদিনের গণহত্যায় শিকার পরিবারগুলোকে দেওয়া হোক রাষ্ট্রীয় স্বৃকীতি। বর্বরতায় শহীদ হওয়া পরিবারগুলো স্বাধীনতার ৪৮ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও স্বৃকীতি পাননি। নিহত শহীদদের স্বরনে বধ্যভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ স্থাপন করা হলেও সেখানে মাত্র ৭৮ জন শহীদদের নাম স্মৃতিফলকে লেখা আছে। বধ্যভূমির চারপাশে সিমানা বেষ্টনি না থাকায় এটি রয়েছে অনেকটাই অরক্ষিত। বধ্যভূমিকে রক্ষনাবেক্ষনসহ পূর্নাঙ্গ শহীদদের তালিকা স্থাপনের দাবী তুলেছেন গণহতায় শিকার পরিবারের সদস্যরা। গুলির মুখ থেকে প্রাণে বেঁচে যান অমর চন্দ্র অধিকারী। গণহত্যার নৃশংসতার বর্ননা দিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পরেন তিনি। তিনি জানান,২৭ শে এপ্রিল জলঢাকার কালীগঞ্জ বর্তমানে বঙ্গবন্ধু হাটের কাছে যে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল পাকসেনারা তা ইতিহাসে বিরল। সেদিন পাকিস্তানি খান সেনারা আমাদেরকে চতুর দিক থেকে ঘিরে ফেলে এবং যুবক,বৃদ্ধ ও কিশোরদের তিন ভাগে বিভক্ত করে দাড় করায়। তিনি আরও বলেন,আমরা কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই ব্রাশ ফায়ার করতে থাকে এলোপাতারি ভাবে। আমি আগে পরে যাওয়ায় ভাগ্যক্রমে প্রাণে বেঁচে যাই। সে সময় এলাকাবাসী আমাকে উদ্ধার করে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,প্রতি বছরেই মুক্তিযোদ্ধা বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাষ্ট্রীয় স্বৃকীতি পাচ্ছেন তারা। কিন্তু আমরা সংখ্যায় কম হয়েও আজও রাষ্ট্রের স্বীকৃতি পেলাম না। এ বিষয়ে উপজেলা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আব্দুল গফ্ফার বলেন, ‘‘১৯৭১ সালে গণহত্যায় নিহত পরিবারগুলোকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির ব্যাপারে আমাদের সংগঠন ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি কেন্দ্রীয় ভাবে সরকারকে তাগাদা দিয়ে আসছেন। অদুর ভবিষ্যতে হয়তো গণহত্যায় শিকার পরিবারগুলো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে পারেন।’’ মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হামিদুর রহমান জানান,‘‘ সেদিন শরণার্থী হিন্দু পরিবারগুলোকে সেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা মর্মান্তিক। সেই পরিবারগুলোকে সরকার মূল্যায়ন করবে এটাই আমি চাই।’’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST