ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরা প্রাইভেটকার নদীতে পড়ে নিহত-২, আহত-৩ । চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা । নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন।
বাংলাদেশ টাইগার যুবাদের বিশ্বকাপ জয়।

বাংলাদেশ টাইগার যুবাদের বিশ্বকাপ জয়।

খেলা ডেস্ক,
খালেদ মাহমুদ সুজনের কথা, ‘এটা ছিল কমপ্লিট টিম ওয়ার্কের ফসল। সবার অবদান আছে। সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে চেষ্টা করেছে। প্রতিটি ক্রিকেটার, ট্রেনার, ফিজিও, ম্যানেজার এবং কোচিং স্টাফের সবাই প্রাণপন চেষ্টা করেছেন। তাদের সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ধরা দিয়েছে সাফল্য।বাংলাদেশ দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরই ড্রেসিংরুমের প্রবেশ পথে টিভি ক্যামেরা ঘুরে যায়। দেখা গেল খালেদ মাহমুদ সুজন চোখের পানি মুছতে মুছতে মাঠে প্রবেশ করছেন। বিসিবির পক্ষ থেকে পচেফস্ট্রমে টাইগার যুবাদের বিশ্বকাপ জয়ের সাক্ষী হতে সর্বোচ্চ কর্মকর্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেবল তিনিই।
খালেদ মাহমুদ সুজনও যে দলের সঙ্গে সেখানে উপস্থিত ছিলেন, তা অনেকেই জানতেন না, যদি না কান্নারত সাবেক এই অধিনায়ক এবং বিসিবি পরিচালককে টিভির পর্দায় দেখা না যেত। তাকে দেখার পরই পরিষ্কার হয়ে যায়, ‘নিশ্চিত, বাংলাদেশের বিশ্বজয়ে খালেদ মাহমুদ সুজনের অবদানও কম নয়।’
সেই খালেদ মাহমুদ সুজনই পচেফস্ট্রম থেকে ফোনে দেয়া সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের যুবাদের বিশ্বকাপ জয়ের আসল রহস্য তুলে ধরলেন। জানালেন, গত দুই বছরের পরিকল্পনা আর নিরলস পরিশ্রমের ফসলেই হলো এ চ্যাম্পিয়নশিপ।
আগে যতবারই বাংলদেশ যুব বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছে, প্রায় প্রতিবারই এক বা দুজন একটু নামি ও মেধাবি-কুশলী এবং একটু উঁচু মার্গের ক্রিকেটার দলে ছিল।
সেই মাশরাফি, আশরাফুল, নাফিস ইকবাল, আফতাব, তালহা জুবায়েররা যখন এক সাথে খেলেছেন, তখন তাদের নিয়েই কথা হয়েছে বেশি। এরপর সাকিব, মুশফিক আর তামিমরা যুব বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েও হাইলাইটেড ছিলেন। তাদের ওপরই ছিল সব ফোকাস।
এরপর এনামুল হক বিজয় আর লিটন দাসরা ছিলেন আলোচিত। সর্বশেষ ঘরের মাঠে যেবার বিশ্ব যুব ক্রিকেটের আসর বসেছিল, সেবারও মেহেদি হাসান মিরাজ আর নাজমুল হোসেন শান্তরা ছিলেন আলোচিত। এবার সে অর্থে বিশেষ কেউ ছিলেন না দলে। এক. দুই বা তিন, চারজন নয় বরং পুরো দলকে নিয়েই কথা হয়েছে বেশি।
সে অর্থে কারো নাম-ডাক বেশি ছিল না। খালেদ মাহমুদ সুজন মনে করেন, সেটাও দলের সম্প্রীতি, সংহতি, টিম স্পিরিট তৈরিতে রেখেছে বড় ভুমিকা। সবাই জান-প্রাণ দিয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে চেষ্টা করেছে। সামথ্যের সবটুকু উজাড় করে দিয়েছে।
তারপরও হেড কোচ নাভেদ নাওয়াজ আর ফিল্ডিং কোচ ফয়সাল হোসেন ডিকেন্সের প্রশংসা বেশি সুজনের মুখে। সবার জানা, নাভেদ নাওয়াজকে কোচ করার পিছনে তার নিজের ভূমিকাই সবচেয়ে বেশি।
তবে আজ নাভেদ নাওয়াজকে কোচ নিয়োগের প্রসঙ্গ উঠতেই বিনয়ী সুজন বলে উঠলেন, ‘আমি হয়ত নাভেদ নাওয়াজের নাম প্রস্তাব করেছিলাম। তবে তাকে যুব দলের কোচ করার পিছনে বোর্ডের অন্যতম সিনিয়র ও শীর্ষ পরিচালক মাহবুব ভাই (মাহবুব আনাম) দারুণ ভূমিকা রেখেছেন। মাহবুব ভাই অগ্রনী ভূমিকা না রাখলে হয়ত নাভেদ নাওয়াজকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া সম্ভব হতো না।’

বোলিং কোচ, ট্রেনার, ফিজিওসহ সবার অকুন্ঠ প্রশংনা করে সুজন বলে ওঠেন ফিল্ডিং কোচ ডিকেন্সও দারুণ কাজ করেছে। আমার খুব বিশ্বাস ছিল ডিকেন্সের ওপর। সে ভাল কাজ করেছ। আমাদের যুবাদের ফিল্ডিং ছিল দারুণ। সেই কাজে ডিকেন্সও খুব ভাল ভূমিকা রেখেছে।’
পাশাপাশি বোর্ডকেও বিশেষ কৃতিত্ব দিতে চান সুজন
সুজনের মূল্যায়ন, যুব দল মাঠে পারফর্ম করে একের পর এক হার্ডলস অতিক্রম করে সাফল্যের বন্দরে পৌঁছে গেছে। আসল কৃতিত্বটা তাদের। তবে তাদের এ পর্যন্ত আসার পিছনে কোচিং স্টাফদের অবদান প্রচুর।

একইভাবে বিসিবির ভূমিকাও অনেক। কারণ ব্যখ্যা করে সুজন বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে দুই বছর আগে একটা দীর্ঘ মেয়দি পরিকল্পনা করেছিলাম। খেলা হবে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে। তার আগে যত বেশি সম্ভব ম্যাচ খেলানোর চিন্তা ছিল। সেটা চিন্তার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে আমরা চেষ্টা করেছি দেশে ও বাইরে যত বেশি সম্ভব ম্যাচ খেলাতে। সে কাজে বোর্ডের অনেক অর্থ খরচ হয়েছে। আমার মনে হয় এই যুব দলের প্রস্তুতি, অনুশীলন আর বিভিন্ন দেশে ও শহরে প্রস্তুতি ম্যাচ, সফরের আয়োজনে সবচেয়ে বেশী অর্থ ব্যয় করেছে বোর্ড।’

পরক্ষণে তিনি বলেন, ‘আমরা দেশে-বিদেশে ৩০টি ম্যাচ খেলেছি। ট্রেনিং প্রোগ্রাম আর সিডিউল করা, প্র্যাকটিস উইকেট নির্মাণ এবং আনুসাঙ্গিক সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ক্ষেত্রে সর্বাত্মক চেষ্টাও ছিল।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST