ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদসম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি, নীলফামারীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ২ লাখ ৭৬ হাজার ২০১টি পশু নীলফামারীতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে নারীদের ছয় মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণের উদ্বোধন চট্টগ্রামে টাকার জন্য মাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ যুবদলের নির্যাতিত নেতৃবৃন্দের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
সৈয়দপুরে সরকার নির্ধারিত দামের দ্বিগুণ দরে বিক্রি হচ্ছে আলু পেঁয়াজ

সৈয়দপুরে সরকার নির্ধারিত দামের দ্বিগুণ দরে বিক্রি হচ্ছে আলু পেঁয়াজ

নুর মোহাম্মদ ওয়ালীউর রহমান রতন, স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর সৈয়দপুরে সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে আলু ও পেঁয়াজ। স্থানীয় খুচরা বাজারে প্রতি কেজি আলু ৩০ থেকে ৩৫ ও পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকা বেশি দর হিসেবে ৭০ ও ১৩০ টাকা দাম নেয়া হচ্ছে। বাজার তদারকির অভাবেই এভাবে বেশি দাম নেয়ার সুযোগ পাচ্ছে ফড়িয়া ও খুচরা বিক্রেতারা। এমন অভিযোগ করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ক্রেতারা।

সূত্র মতে, গত ১৪ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আলু পাইকারি সর্বোচ্চ ২৭, খুচরা ৩৬, পেঁয়াজ পাইকারি ৫৪, খুচরা ৬৫ টাকায় বিক্রির দাম নির্ধারণ করে দেয়। এই নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে কিনা তা তদারকির জন্য জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে বিশেষ নির্দেশনাও দেয়া হয়। কিন্তু সেই দামে আলু ও পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে না।

সরেজমিন শহরের আধুনিক পৌর সবজি বাজার ও রেলওয়ে গেট বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, দেশি আলুর কেজি ৭০, শীল বিলাতি (স্থানীয় নাম) ৭৫, স্টিক (লাল) ও কার্ডিনাল জাতের আলু ৫৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর দেশি পেঁয়াজ ১৩০ টাকা কেজি ও হাইব্রিড (আমদানীকৃত) ১১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

আইভি আক্তার নামের এক ক্রেতা বলেন, মাত্র তিন দিন আগেই প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ কিনেছি ৮০ টাকায়। আর আজ সেই পেঁয়াজ কিনতে হলো ১৩০ টাকায়। তিনি অভিযোগ করেন, বাজার তদারকির অভাবেই এভাবে দাম বেশি নেয়ার সুযোগ পাচ্ছে খুচরা বিক্রেতারা।

রেলওয়ে গেট বাজারের খুচরা সবজি বিক্রেতা আবেদ আলী বলেন, আমরা সরকার নির্ধারিত পাইকারি দামে কিনতে পারছি না। তাই যে দামে কিনেছি তার থেকে ৫ টাকা লাভে বিক্রি করছি। আড়তে দাম বেশী নেয়ায় খুচরা বাজারে কম করা সম্ভব হচ্ছেনা।

শহরের গোলাহাট, আদানী মোড়, নিমবাগান, মিস্ত্রিপাড়া সহ গ্রামাঞ্চলের চৌমুহনী, পোড়ারহাট, হাজারীহাট, চওড়া বাজার, ঢেলাপীর, কামারপুকুর, রাবেয়া মোড়, মতির মোড়, তোফায়েলের মোড়, নিজামের চৌপথী, চিকলী বাজার, খিয়ারজুম্মা, হামুরহাট, বুড়ির বাজারে আরও বেশী দামে বিক্রি করছে খুচরা দোকানদারেরা।

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফয়সাল রায়হান বলেন, খুব শিগগিরই বাজার তদারকি করতে প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষও বাজারে অভিযান চালাবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST