ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদসম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি, নীলফামারীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত ২ লাখ ৭৬ হাজার ২০১টি পশু নীলফামারীতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে নারীদের ছয় মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণের উদ্বোধন চট্টগ্রামে টাকার জন্য মাকে কুপিয়ে হত্যা, ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ যুবদলের নির্যাতিত নেতৃবৃন্দের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত
ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে নীলফামারীর বন্যা

ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে নীলফামারীর বন্যা

স্টাফ রিপোর্টার,
সারাদিন ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন নীলফামারীর ফাতেমা আক্তার বন্যা (৪০)। তার বাড়ী জেলা শহড় থেকে দক্ষিনে ১০ কিলোমিটার দুরে। নীলফামারী সদরের সোনারায় ইউনিয়েনের সোনারায় দারোয়ানী গ্রামে। সে ওই এলাকার মিজানুর রহমানের স্ত্রী। তার তিন মেয়ে। স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকা শহড়ে চলে যান।তারপর থেকে তিন মেয়েকে নিয়ে সংসার চালানোয় বেকায়দায় পরে বন্যা। কোন উপায় খুজে না পেয়ে ২০০৫ সাল থেকে নিজের জমানো টাকা দিয়ে একটি ভ্যান গাড়ী কিনেন বন্যা।

ভ্যানে যখন যাত্রী কম হয়, রোজগার কমে যায়, তখন তিনি শুরু করেন ভ্রাম্যমান ব্যবসা। ব্যবসায় রয়েছে কসমেটিক,কাপড়,ছোটদের খেলনা।এগুলো গ্রামগঞ্জে শহড়ে ঘুরে বিক্রি করেন তিনি।ব্যবসার লাভের টাকা দিয়ে তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন,নিজে চলেন ও বৃদ্ধা বাবার যাবতীয় দেখাশুনা করেন। নিজস্ব ভিটেমাটি নেই তার। অন্যের একশতক জমির উপড় কোনরকম ঝুঁপড়ি ঘরে ঠাঁই বেঁধে আছেন। তার একমাত্র সম্বল ভ্যান গাড়িটি।

স্থানীয় ব্যক্তি আব্দুল বারেক বলেন,ওই নারী প্রায় ১৫-২০ বছর থেকে ভ্যান চালিয়ে সংসার চালান। ভ্যান চালিয়ে তিন মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। এখন বৃদ্ধা বাবাকে নিয়ে সংসারের হাল ধরে রেখেছেন তিনি। পুরুষের পেশা মেয়ে মানুষ করেন, এটা ভাবতে অবাক লাগে।অন্য নারীরা ঘরে বসে না থেকে বন্যার মতো এই পেশা হাতে নিলে সংসারে কোন অভাব থাকবে না। আমরা বন্যাকে স্যালুট জানাই।

ওই এলাকার মোস্তফা বলেন,স্বামী মিজানুর রহমান তিন মেয়ে ও স্ত্রীকে রেখে অন্য মেয়েকে বিয়ে করে দুরে চলে যান। মেয়েদের মুখে একমুঠো ভাত জোগার করার জন্য এই পেশা বেছে নেন বন্যা। আজ সে ভ্যান চালিয়ে অভাবের সংসারে প্রদীপ জ্বালিয়েছে। আমরা চাই বন্যার মতো অন্য নারীরাও এগিয়ে আসুক।
এ বিষয়ে ফাতেমা আক্তার বন্যা বলেন, তিন মেয়েকে রেখে স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকা চলে যায়। তখন সংসার চালানো হিমশিম খাচ্ছি ও মেয়েদের মুখে একমুঠো ভাত দেওয়ার কোন উপায় নেই। কোন দিশকুল না পেয়ে বেছে নিয়েছি ২০০৫ সালে ভ্যান চালানো পেশা। পুরুষেরা যদি পারে আমি কেনো পারবো না, এ জন্য সাহস করে ভ্যান হাতে নিয়ে আজ আমি সংসারের হাল ধরতে পেরেছি। চেয়ারম্যান মেম্বারের কাছে সারাক্ষন ধরনা দিয়েও আজ পর্যন্ত কোন সরকারী সাহায্য সহযোগিতা পাইনি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহেদী হাসানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন বিষয়টি আমার জানা নেই, খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST