ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে ক্লুলেস হত্যা মামলার চার আসামী গ্রেফতার; পুলিশ সুপারের প্রেস ব্রিফিং নীলফামারীতে গর্ভবর্তী মায়েদের কমিউনিটি ক্লিনিকে সেবা নিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর আহব্বান পাটগ্রামে স্বঘোষিত মুক্তিযোদ্ধা গবেষক মিঠু’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন লালমনিরহাটের হাতিবান্ধায় ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৩ নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে, লাশ হয়ে ফিরতে হলো চট্টগ্রামে এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে ধর্ষণ, আটক পিয়ন নীলফামারীতে বিরল আ’কৃতির শি’শুর জ’ন্ম, নেই হাত-পা ও মাথা পাটগ্রামে বিভিন্ন  স্থানে অভিযান, বোমা মেশিন বিনষ্ট ও জরিমানা চট্টগ্রামে মহামারী আকারে ক্ষুরা ও লাম্পি রোগে আক্রান্ত গরু চট্টগ্রামে আমন চারা তৈরিতে ব্যাস্ত সময় পার করছে কৃষক
নীলফামারীতে চলছে শৈতপ্রবাহ, চরম দুর্ভোগে জনজীবন

নীলফামারীতে চলছে শৈতপ্রবাহ, চরম দুর্ভোগে জনজীবন

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,
উত্তরের জনপথ নীলফামারীতে গত কয়েকেদিন ধরেই চলছে প্রচন্ড শীত এবং সকাল থেকে শৈতপ্রবাহ। সারাদিনে দেখা নেই সূর্যের। তীব্র শীতের কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে জেলার ডোমার, ডিমলা, জলঢাকা, সদর, কিশোরগঞ্জ ও সৈয়দপুর উপজেলার ছিন্নমূল মানুষের জীবনযাত্রা। চরম দুর্ভোগে পড়েছে শ্রমজীবি মানুষ। পাশাপাশি গবাদি পশু ও পাখিরাও কাবু হয়ে পড়েছে এই শীতে। তাছাড়া ৬ থেকে ৭ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া পশ্চিমা হীম শীতল বাতাশ শীতের তীব্রতাকে কয়েক গুন বৃদ্ধি করেছে। অনেকটা নিরুপায় হয়ে শ্রমজীবি মানুষ কাজের সন্ধানে বেড়িয়ে পড়ছেন।

সোমবার (১৫ জানুয়ারী/২৪) সকালে সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা যায় শীত থেকে রক্ষা পেতে নিম্ন আয়ের মানুষ খড়-কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন। কুয়াশার কারণে সকালবেলা বিভিন্ন যানবাহনকে চলাচল করতে হচ্ছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। তবে দুপুরের দিকে কুয়াশা কিছুটা কমলেও সন্ধা থেকে আবারো শুরু হয় হীম শীতল বাতাশ আর কুয়াশা।

অপরদিকে জেলার হাসপাতালগুলোতেও বেড়েছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। এর মধ্যে শিশু ও বৃদ্ধরা ডায়রিয়া ও সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন। শীত জেঁকে বসায় ফুটপাত ও মার্কেটগুলোতে শীতবস্ত্র কিনতে ভিড় জমিয়েছেন সকল শ্রেণী পেশার মানুষ।

জেলা সদরের চড়াইখোলা ইউনিয়নের আবুল কাশেম (৬০) বলেন, ঠান্ডাত হামার গরিব মানুষের খুব কষ্ট বাহে। গড়ম কাপর না থাকায় খেড় জড়ো করি আগুন পোহাইছি। শুনিছি সরকার কম্বল দেয়ছে কিন্তু হামড়া তো এলাও কোনা কম্বল পাইনো না। এই ঠান্ডাত হামাক একটা করি কম্বল দিলে অনেক উপকার হইল হায়।

কুন্দপুকুর ইউনিয়নের খালিশাপাড়া এলাকার ওলিয়া বেগম (৬০) ও ওমেদা বগেম (৫৯) বলেন, হামরা গরিব মানুষ। এই ঠান্ডাত কষ্ট করি কাজ-কর্ম করিছি। ঠান্ডার কারণে ছাওয়া ছোটোর কামাই রোজগারও কমি গেইছে। এলাও ঠান্ডার কোন কাপরই কিনির পাইনাই। দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরিব মানুষের অনেক সাহায্য সহযোগীতা করে। ঠান্ডাত কম্বলও দেয়। যদি হামাক একটা করি কম্বল দিলো হায় তাহলে খুবেই উপকার হইতো।

ভ্যান চালক ওমেদুল (৪৫) বলেন, যে ঠান্ডা, কেমন করি ঘর থাকি বেড়াই। আবার পরিবার চালের গেইলে তো কামাইও করির নাগিবে। এই ঠান্ডা আর কুয়াশাতে বেরাছি কিন্তুক কামাই নাই। মানুষ ভ্যানত না চড়ে। বাতাস লাইগবে। সারাদিনে কামাই হইছে একশত পঞ্চাশ টাকা। এইলা টাকা দিয়া সংসার চলে।

সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লোকমান হাকিম বলেন, নীলফামারীতে আজ ১০.২ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এ জেলায় প্রচন্ড শীত আর হিমেল হাওয়ার কারণে দিন যত গড়াচ্ছে, ততই শৈত্যপ্রবাহ বাড়ছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST