ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় প্রেমিকার বাড়ীতে নির্মম নির্যাতনের শিকার টেক্সটাইলস ইঞ্জিনিয়ার রংপুরে ক্যামেরায় কথা বলছে, গ্রামীন জনপদের ফরিদপুরে বাস পিক-আপ মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১২, আশঙ্কাজনক ৩ পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মেতেছে নীলফামারী সাতক্ষীরায় ভিডিও কলে রেখে ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বিউটিশিয়ানের আত্মহত্যা নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের নীলফামারীতে কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন ঈদে বাড়ি ফেরা হলো না, শিশু সন্তান সহ পরিবারের  ঈদে ৫ দিন বন্ধের পরে, সাতক্ষীরা স্থলবন্দরে আমদানী-রপ্তানী শুরু, কর্মচাঞ্চল্য বাগেরহাটে পুকুরে স্যাটেলাইট কুমির উদ্ধার, অবমুক্ত সুন্দরবনে
নীলফামারীতে নদী এখন ফসলি জমি

নীলফামারীতে নদী এখন ফসলি জমি

স্টাফ রিপোর্টার,

নীলফামারীর বুক চিরে প্রবাহিত হচ্ছে ছোট বড় অনেক নদী। এসব নদী সারা বছর পানিতে ভরপুর থাকত। নদীতে পাল তুলে চলত ছোট বড় নৌকা। নদীর আশেপাশে দুই পাড়ের কৃষকরা হাজার হাজার একর ফসলি জমিতে সেচ দিতেন। বর্তমানে নদী ভরাট হওয়ার কারণে চাষ হচ্ছে ধান সহ বিভিন্ন ফসল। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ না থাকায় দখল ও দূষণের কবলে পড়েছে এসব নদী। চাষাবাদের জন্য নদী দখলের জন্য চলছে পায়তারা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জলঢাকা উপজেলার উপড় দিয়ে বুড়ি তিস্তা,যমুনেশ্বরী,চাকলা,আরো ছোট বড় অনেক নদী প্রবাহিত হয়ে বিভিন্ন বড় নদীতে গিয়ে সংযোগ হয়েছে। নদীগুলোয় অল্প পানি থাকায় প্রভাবশালীরা দখল করে মাছ ও ধান চাষ করছে। নদীর উপকারিতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

নদী পাড়ের কৃষক সুমন মিয়া ও উজ্জল হোসেন বলেন, এক সময় নদী সমুহে পর্যাপ্ত পানি প্রবাহ ছিল। নদীর পানি দিয়ে চাষাবাদ করার পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় সব কাজ করা যেতো। আমন ও বোরো ধানের মৌসুমে জমিতে সেচ দেওয়ার কোনো চিন্তা করতে হতো না। এখন আর জমিতে সেচ দেয়ার মতো পানি নেই। নদী শুকিয়ে হচ্ছে ফসল চাষ। নদী সমুহে দীর্ঘদিন ধরে খনন ও ড্রেজিং না করায় নদীর তলদেশে পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে।নদীর দুই তীরে যাদের জমি আছে তারাই নদী দখলে নিচ্ছে।

কৈমারী ইউনিয়নের গাবরোল এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মকবুল হোসেন বলেন, নদীকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন হাট বাজার ও শহর গড়ে উঠেছে। নদীর যেটুকু অস্তিত্ব রয়েছে তা এখন দখল ও দূষণের কবলে। পুরো নদীগুলো ধানের জমিতে পরিণত হয়েছে।

উপজেলায় নদী রক্ষা কমিটি’র সাইদুল রহমান বলেন, উপজেলার ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নদী সমুহ পুনঃখনন ও ড্রেজিং করা না হলে আগামী দুই যুগ পর হয়ত আগামী প্রজন্ম বিশ্বাসই করতে চাইবে না জলঢাকায় বিভিন্ন নদী ছিল।

এ বিষয়ে জলঢাকা উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) এবিএম সারোয়ার রাব্বী বলেন,নদী দখলের জায়গা গুলোতে আমরা উচ্ছেদের ব্যবস্থা করছি। শুকনো মৌসুমে নদীতে ধান চাষ করে দখলে নিলেও বর্ষায় পানি হলে তা দখল মুক্ত হয়ে যায়। নদী রক্ষায় সরকারের নানা মুখী পরিকল্পনা রয়েছে,জলঢাকার নদীগুলো এর আওতায় আসবে শীঘ্রই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST