ঘোষনা:
শিরোনাম :
সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক
ঢেলাপীর হাটে আসবাবপত্র বিক্রি করে স্বাবলম্বী ব্যবসায়ীরা

ঢেলাপীর হাটে আসবাবপত্র বিক্রি করে স্বাবলম্বী ব্যবসায়ীরা

নুর মোহাম্মদ ওয়ালীউর রহমান রতন,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর সৈয়দপুরে কাঠের আসবাবপত্র বা ফার্নিচার ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়ে অনেক ব্যবাসায়ী এখন স্বাবলম্বী হয়েছেন। উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে কাঠের আসবাবের দোকানের সংখ্যা দিন দিন যেমন বাড়ছে, তেমনি বেড়েছে এর বিক্রিও।

উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে প্রায় দুই শতাধিক কাঠের আসবাবের দোকান রয়েছে। অধিকাংশ দোকানের অবস্থান বাসস্ট্যান্ড, বঙ্গবন্ধু সড়ক, ওয়াপদা নতুনহাট, কয়া গোলাহাট ডাঙ্গাপাড়া, ইসলামবাগ, সাহেবপাড়া, নতুনবাবু পাড়া, বিমানবন্দর সড়কসহ বিভিন্ন স্থানে। এসব দোকানগুলোতে তৈরি হচ্ছে কারুকার্যখচিত বিভিন্ন ধরনের খাট, আলনা, শোকেস, চেয়ার-টেবিল, ডাইনিং টেবিল ইত্যাদি। দামও মোটামুটি নাগালের মধ্যেই। এসব তৈরি আসবাব বেশিভাগ বিক্রির জন্য তোলা হয় গরিবের হাট ‘ঢেলাপীরে’।

নীলফামারী-সৈয়দপুর সড়কের সঙ্গে লাগোয়া ঢেলাপীর হাট। শহর থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে। সপ্তাহের দুইদিন শুক্রবার ও মঙ্গলবার এই হাটে চলে জমজমাট বেচা-কেনা। সকাল থেকে এই হাটে খাট, চৌকি, আলনা, শো-কেস, আলমিরা, সোফা, ডাইনিং টেবিল, বেঞ্চ, চেয়ার- টেবিল থেকে শুরু করে পিঠা তৈরির সাজ, পিড়ি- পর্যন্ত ওঠে। সর্বনিম্ন ২০০ থেকে ১৫-২০ হাজার টাকা দামে বিক্রি হয় এসব ফার্নিচার। সবই রেডিমেড। সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত এসব ফার্নিচার সাধারণত গরিব মানুষই কেনেন। এভাবে প্রতি হাটে প্রায় তিন লাখ টাকার আসবাব পত্র বিক্রি হয়ে থাকে।

বোতলাগাড়ী পাঠানপাড়া গ্রামের কাঠ মিস্ত্রি বিমল চন্দ্র রায় বলেন, আমি এক সময় বেকার ছিলাম। কাঠের আসবাবের দোকানে মিস্ত্রির কাজ শেখার জন্য ৭ বছর আগে একটি দোকানে বিনা বেতনে কাজ শুরু করি। এরপর আমি কাঠের আসবাবের কাজ শিখে নিজেই বাড়িতে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলি। এখন আমার এখানে তৈরি বিভিন্ন ধরনের আসবাব ঢেলাপীর হাটে বিক্রি করে আমিসহ আমার প্রতিষ্ঠানে কাজ করা দশজনের সংসার চলে।

বাশঁবাড়ি এলাকার ফার্নিচার ব্যবসায়ী হুসেন আলী জানান, দিন যত যাচ্ছে কাঠের ফার্নিচারের কদর ততই বাড়ছে। স্টিলের আসবাবপত্রের চেয়ে কাঠের আসবাবের মান ভালো। আগে আমি বাড়ি বাড়ি গিয়ে ফার্নিচার তৈরির কাজ করতাম। এখন নিজের দোকানে মিস্ত্রি বসিয়ে ফার্নিচার বানিয়ে হাটে আনি বিক্রির জন্য। দামও তুলনামূলক কম হওয়ায় বিক্রি হয়ে যায় প্রায় সব ফার্নিচার।

হাটে কথা হয় খাট, টেবিল ও চেয়ার কিনতে আসা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বিক্রয় প্রতিনিধি আতিক হাসানের সাথে, তিনি বলেন জামালপুর মেলেন্দাহ উপজেলা থেকে নতুন চাকরী পেয়ে সৈয়দপুরে এসেছি। তাই অল্প টাকা দিয়ে সাধ্যের মধ্যে ৭ হাজার টাকার খাট, ৯শ’ টাকায় টেবিল ও মাত্র ৩৫০ টাকা দিয়ে একটি চেয়ার কিনেছি। এত অল্প টাকায় পেয়ে যাব ভাবতেই পারিনি।

ঢেলাপীড় হাটের ইজারাদার মোতালেব হোসেন বলেন, নীলফামারী জেলায় ঢেলাপীর হাটটি বেশ পরিচিত। পরিবেশ ভালো থাকায় দূর-দূরান্তের ক্রেতা-বিক্রেতারা সপ্তাহের মঙ্গলবার ও শুক্রবার এই হাটে আসেন। বিশেষ করে ফার্নিচার, নতুন-পুরাতন সাইকেল, রিকশা-ভ্যানের জমজমাট বেচাকেনা চলে এখানে। ধানের বাজারে বগুড়া, জয়পুরহাট, শেরপুর এলাকার বড় বড় পাইকারেরা এখানে আসেন। এ ছাড়া আমাদের নিয়োগকৃত লোকজন হাটের এলাকা পাহারায় থাকেন। তাই হাটে চোর বা পকেটমার নেই।

নীলফামারী চেম্বার্স অব কমার্সের সাবেক সহ-সভাপতি হাজী জুবায়ের আলম বলেন, কাঠের তৈরি আসবাবপত্র আমাদের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক। মাঝে এর বিক্রি কমে গেলেও এখন এর কদর বেড়েছে। আর জেলায় ফার্নিচারের জন্য ঢেলাপীর হাট বেশ সমৃদ্ধ। এতে করে গরিবের যেমন শখ পূরণ হচ্ছে, তেমনি অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেন এখানকার মানুষ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST