ঘোষনা:
শিরোনাম :
আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী খাগড়াছড়িতে ৭ম টিআরসি ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী নীলফামারীর ডিমলায় মাদকদ্রব্যের রোধকল্পে কর্মশালা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রায়পুরায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত,৩ আহত ৫ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৭০ জন  জলঢাকা পৌরসভার ৭৯ কোটি ৭৯ লক্ষ ১ হাজার ৭ শত ৩০টাকার বাজেট ঘোষনা কিশোরগঞ্জে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণে কর্মশালা

চাকঘরের মানিকলাল ,মৃতদেহ তার সংসার।

সুজামৃধা, নীলফামারী ,
মানিকলাল বাঁশফোর।মানিক নামে সবাই তাঁকে চেনেন। এ নামেই পরিচিতি তাঁর। মধ্যবয়সী এক জন মানুষ।বেশ হাসি-খুশি।কথাও বলেন খোলা মেলা।
নীলফামারী শহরের বাড়াই পাড়ায়নী লাভ জলের ক্যানেল পাড়ে বসত তাঁর।বেশ ছায়া ঘেরা সুনসান এলাকাটি। শীতল-পাখি ডাকা। এখানেই স্ত্রী ও পাঁচ সন্তান নিয়ে গড়েছেন এক টুকরো সুখের সংসার। বেশ ভালো আছেন মানিকলাল।
পেশা জীবনে মানিকলাল বাঁশফোর নীলফামারী সদর আধুনিক হাসপাতালে কাজ করেন।ঝাড়–দার।পাশা পাশি ডোমের কাজটিও সাড়তে হয় তাঁকে। তাও প্রায় আট বছর ধরে।
সেদিন ভর দুপুরে বাঁশ ঝাড় ঘেঁষা ওর বাড়িতে বসে কথ াহলো। অনেক কথা। বললেন, ‘এই মাত্র একটি পোস্ট মোর্টেম করে আসলাম। এখন গোসল সেরে ফ্রেশহবো।’ ‘এ পর্যন্ত কতগুলো পোস্টমোর্টেম করেছেন?’জানতে চাইলে বলেন, ‘হিসাব কষে রাখিনি। ধরেন, তাও কয়েকশ’হবে।’‘কেমনলাগে এ পেশা?’এমন প্রশ্নের উত্তরে জানালেন, ‘খারাপলাগবে কেন? ভালোই তোলাগে।আমি তো সত্য উৎঘাটন করি।তাছাড়া এটাই আমার কাজ। পেশাকে তো সম্মান দিতেই হবে।’’কার কাছে শিখেছেন ডোমের কাজ?’জানতে চাইলে বললেন, ‘আমার আগের ডোম মিলনের সাথে ঘুরে ঘুরে লাশ কাটা দেখেছি,শিখেছি। তাছাড়া ডাক্তার বাবুরা তো আছেন।’ ‘এ কাজে কখনও মন খারাপ হয়নি আপনার?’মুখটা ক্ষাণিক নিচু করে রাখলেন। তার পর বললেন, ‘হয়েছে। অনেকবারহয়েছে। বিশেষ করে শিশুদের পোস্ট মোর্টেম করতে গেলে খুব কস্ট হয়। মনটাতে ঝড় উঠে। আহারে—-! মানুষ যে কেন এত অমানুষ হয়, বুঝিনা স্যার!’‘মৃতদেহ কাটতে ভয় লাগেনা?’ এ প্রশ্নের উত্তরে একটু হাসলেন। তার পর বললেন, ‘না। ভয় লাগবে কেন? পুরুষ মানুষের ভয় থাকতেনাই। আপনি ভয় পান স্যার? তবে, রাতে মাঝে-মধ্যে কেউ-কেউ খুব জ্বালাতন করে। ভয় দেখায়। বলে, আমারে কাটলিক্যান?’
বেলা গড়িয়ে যাওয়ায় হঠাৎ খুব ব্যস্ত হয়ে পড়েন মানিকলাল। বললেন, ‘স্যার, আমার হাতে এখন এক দম টাইম নাই। গোসল সারতে হবে। তার পর খানাপিনা আছে। আরেক দিন কথাবলবো।’বলে মাথাটা সামান্য কাৎকরে একটু মুচকি হাসলেন। শেষে বললেন, ‘আমারজন্য দোয়া করবেন। আমি যেনো মানুষের ন্যায়বিচারের এই কাজটা সারাজীবন করে যেতেপারি।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST